রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৩:৪৯ অপরাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম:
সাবেক প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজমের প্রচেষ্টায় উন্নয়ন হচ্ছে জামালপুর ইউপি সদস্য ও তার সহচর কর্তৃক ধর্ষিত হয়ে বিধবার আত্মহত্যা! দূর্নীতি বিরোধী শুদ্ধি অভিযানকে স্বাগত জানিয়ে নীলফামারিতে র‌্যালী ও সমাবেশ জামালপুরের মেলান্দহে ধান বোঝাই ট্রাক্টর উল্টে চালকের মৃত্যু রাশিদুলের দুটি কিডনিই বিকল,মানবিক সাহায্যের আবেদন ঝালকাঠিতে ইলিশ নিধন অপরাধে তিন জেলেকে কারাদন্ড  ঝালকাঠিতে ইলিশ মাছ  নিয়ে পালানোর নালায় পড়ে প্রবাসীর মৃত্যু দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযানকে স্বাগত জানিয়ে নীলফামারীতে র‌্যালী ও সমাবেশ ধামরাই প্রেসক্লাবের দ্বিবার্ষিক নির্বাচন সাঁথিয়া সরকারি হাই স্কুলে প্রশ্নপত্র না থাকায় নির্বাচনী পরীক্ষা দিতে পারেনি ১৮৯জন শিক্ষার্থী বেড়ায় ভ্রাম্যমানে জেল জরিমানা ইলিশসহ কারেন্ট জাল জব্দ সাটুরিয়ায় ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপে সিএনজির চাঁদা তুলা বন্ধ আওয়ামীলীগের স্লোগান জয় বাংলা নয়, এটি মুক্তিযুদ্ধের রণধ্বনি: আকম মোজাম্মেল হক জামালপুরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর কণিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের ৫৫তম জন্মদিন পালিত আবরার হত্যা ও সমসাময়িক রাজনীতি নিয়ে বাংলাদেশ কংগ্রেসের উন্মুক্ত আলোচনা অনুষ্ঠিত প্রজাতন্ত্রের কর্মকর্তারা সবাই জনগণের চাকর: তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান এমপি রূপগঞ্জ ইউপি’র নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান সালাহউদ্দিন ভুঁইয়াকে ফুলেল শুভেচ্ছা সাটুরিয়ার জান্নায় পল্লী বিদ্যুতের উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত জাবিতে দোয়া মাহফিল ও শিক্ষা উপকরণ বিতরণের মাধ্যমে শেখ রাসেলের জন্মদিন পালন ধামরাইয়ে অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার
গোবিন্দগঞ্জে নারী উদ্দোক্তা রুমা গরুর খামার করে

গোবিন্দগঞ্জে নারী উদ্দোক্তা রুমা গরুর খামার করে সাফল্য

ফাইল ছবি

গাইবান্ধা প্রতিনিধি: বাংলাদেশ কৃষি প্রধান দেশ। কৃষির উপর ভিত্তি করেই গড়ে উঠছে এদেশের অর্থনীতি। তবে দেশের কৃষির পাশাপাশি কিছু আয়বর্ধক কার্যক্রমের ভূমিকাও অপরিসীম। তবে এ কৃষি অর্থনীতি গড়ে ওঠার পিছনে রয়েছে আমাদের নারী সমাজের অবদান। গরুর খামার করে অথচ যুগ যুগ ধরে আমাদের সমাজে নারীরা নানা বঞ্চনার স্বীকার। এ সমাজে নারীদের পারিবারিক ও সমাজিকভাবে রয়েছে নানা সীমাবদ্ধতা। তবে সকল সীমাবদ্ধতা ও প্রতিবন্ধকতা অতিক্রম করে আমাদের নারীরা মাথা উচুঁ করা দাঁড়াচ্ছে। এ দেশের নারীরা হিমালয় জয় করছে, মহাকাশ অভিযান চালাচ্ছে। এছাড়া নিজ মেধা ও পরিশ্রমে এদেশের নারীরাও একেকজন হয়ে উঠছে উদ্দোক্তা। এমননি একজন নারী গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জের মরিয়ম আক্তার রুমা। রুমা নারী হয়েও তার মেধা ও শ্রম কাজে লাগিয়ে একক প্রচেষ্টায় বাড়ী উঠানে গড়ে তুলেছেন দেশী ও বিদেশি গরুর খামার। সেখান থেকে সে বার্ষিক আয় করছে আড়াই থেকে তিন লাখ টাকা। গতকাল ১লা অক্টোবর সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে রুমার সাথে কথা বলে জানা যায় দেড় যুগ আগে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার ফুলবাড়ী ইউনিয়নের ছোট সাতাইল বাতাইল গ্রামের নয়া মিয়ার পুত্র নুরুল ইসলাম লিটনের সাথে বিবাহ হয় পাশের এলাকার মরিয়ম আক্তার রুমার। বিয়ের পর রুমা মায়ের দেয়া একটা বকনা বাছুর লালন পালন করেন। লালন পালনে ঐ বাছুরটি পরে গাভীতে পরিণত হলে সেখান থেকে গরুর সংখ্যা বৃদ্ধি পেতে থাকে।পরে একটি দুটি করে বৃদ্ধি পেয়ে চারটিতে পরিণত হয়। এরইমধ্যে রুমার স্বামী লিটন ২০১৬ সালে কর্মের উদ্দেশ্যে কুয়েত গমন করেন। রুমা জানায় স্বামী কুয়েত গমনের পর আমার হাতে অবসর সময় বেড়ে যায়। স্বামীর সেবা যত্নে যে সময়টা ব্যয় হতো ঐ সময়টাই অবসর থাকে।তখন আমি পরিকল্পনা করি আমার অবসর সময়টা ব্যয়ের জন্য আমার এ চারটি গরুকে একটা খামারে রূপ দিতে।এ পরিকল্পনা তার স্বামী ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের সাথে শেয়ার করে সহযোগিতা পায় রুমা। তার পরিকল্পনা অনুযায়ী রুমা গড়ে তোলেন একটি ডেইরি খামার। সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রুমার খামারে রয়েছে বর্তমান দেশী জাতের ৭ টি, শাহীয়াল জাতের ৫ টি অষ্টেলিয়ান জাতের-৫টিসহ মোট ১৭ টি গরু। এরমধ্যে রয়েছে পাঁচটি গাভী ও বাদবাকী ষাঁড় গরু। এ খামার থেকে কেমন আয় হয়? প্রতিবেদক জানতে চাইলে রুমা জানায়, প্রতিদিন গাভী থেকে ৪০ থেকে ৫০ লিটার দুধ আসে ঐটা বাজারে বিক্রি করে খামারের খরচ চালায় এবং বাৎসরিক যে গরু বিক্রি করে ঐটা আয় থাকে। এ খামার থেকে এ বছর কুরবানী ঈদে তিনটি গাভী ও তিনটি ষাঁড় ২ লাখ ৬০ হাজার টাকা বিক্রি করেছে রুমা। ঐটাই আয় হিসেবে ধরেছে খামারে এ উদ্যোক্তা।এ আয় দিয়ে রুমা দুই কন্যা ও এক ছেলে সন্তানকে লেখাপড়া করাচ্ছেন। খামারের গরুর খবার ও যত্ন সম্পর্কে রুমা জানায়, তিনি গরুদের সব সময় দানাদার খাদ্য সরবরাহ করেন এবং সুষম খাদ্য সরবরাহের লক্ষে কিছু জমিতে ঘাস চাষ করেন।এসকল গবাদিপশু লালন পালনে রুমার শ্বশুর শ্বাশুড়ি ও দেবরসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা সহযোগিতা করেন। খামার নিয়ে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে এ উদ্যোক্তা জানায় ভবিষ্যতে সে ১০০ টি গরুর খামার করতে চায় যাতে এলাকার বেকারদের কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দেয়া যায় এমন পরিকল্পনা তার। তবে এ খামার বড় পরিসরে করতে গেলে খামারের অবকাঠামো নির্মাণ ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় চাহিদা মেটাতে অনেক অর্থের প্রয়োজন। এক্ষেত্রে ঋণ সুবিধাসহ সরকারি সহযোগিতা কামনা করেছে এ উদ্যোক্তা। এ বিষয়ে গোবিন্দগঞ্জ প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা বিপ্লব কুমার দে জানান রুমা অনেক পরিশ্রমী মেয়ে। আমরা সর্বদা খামারের খোঁজ খবর রাখছি এবং গবাদিপশু মোটাতাজাকরণ, রোগবালাই দমন ও খামার ব্যাবস্থাপনায় উপজেলা প্রাণী সম্পদ থেকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা ও পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার এবং লাইক করুন..
visitor counter

এ জাতীয় আরো খবর পড়ুন

All rights reserved © 2019 দেশের গর্জন | Desher Garjan
Design & Developed BY Subrata Sutradhar
Translate »