রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৩:১২ অপরাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম:
সাবেক প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজমের প্রচেষ্টায় উন্নয়ন হচ্ছে জামালপুর ইউপি সদস্য ও তার সহচর কর্তৃক ধর্ষিত হয়ে বিধবার আত্মহত্যা! দূর্নীতি বিরোধী শুদ্ধি অভিযানকে স্বাগত জানিয়ে নীলফামারিতে র‌্যালী ও সমাবেশ জামালপুরের মেলান্দহে ধান বোঝাই ট্রাক্টর উল্টে চালকের মৃত্যু রাশিদুলের দুটি কিডনিই বিকল,মানবিক সাহায্যের আবেদন ঝালকাঠিতে ইলিশ নিধন অপরাধে তিন জেলেকে কারাদন্ড  ঝালকাঠিতে ইলিশ মাছ  নিয়ে পালানোর নালায় পড়ে প্রবাসীর মৃত্যু দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযানকে স্বাগত জানিয়ে নীলফামারীতে র‌্যালী ও সমাবেশ ধামরাই প্রেসক্লাবের দ্বিবার্ষিক নির্বাচন সাঁথিয়া সরকারি হাই স্কুলে প্রশ্নপত্র না থাকায় নির্বাচনী পরীক্ষা দিতে পারেনি ১৮৯জন শিক্ষার্থী বেড়ায় ভ্রাম্যমানে জেল জরিমানা ইলিশসহ কারেন্ট জাল জব্দ সাটুরিয়ায় ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপে সিএনজির চাঁদা তুলা বন্ধ আওয়ামীলীগের স্লোগান জয় বাংলা নয়, এটি মুক্তিযুদ্ধের রণধ্বনি: আকম মোজাম্মেল হক জামালপুরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর কণিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের ৫৫তম জন্মদিন পালিত আবরার হত্যা ও সমসাময়িক রাজনীতি নিয়ে বাংলাদেশ কংগ্রেসের উন্মুক্ত আলোচনা অনুষ্ঠিত প্রজাতন্ত্রের কর্মকর্তারা সবাই জনগণের চাকর: তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান এমপি রূপগঞ্জ ইউপি’র নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান সালাহউদ্দিন ভুঁইয়াকে ফুলেল শুভেচ্ছা সাটুরিয়ার জান্নায় পল্লী বিদ্যুতের উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত জাবিতে দোয়া মাহফিল ও শিক্ষা উপকরণ বিতরণের মাধ্যমে শেখ রাসেলের জন্মদিন পালন ধামরাইয়ে অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার
জাতিসংঘের সামনে আওয়ামী লীগ-বিএনপির মুখোমুখি সংঘর্ষ হাসিনা

জাতিসংঘের সামনে আওয়ামী লীগ-বিএনপির মুখোমুখি সংঘর্ষ হাসিনা প্রতিরোধে এককাতারে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি-জাহিদ এফ সরদার সাদী

ফাইল ছবি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রবেশের পুর্বে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশে উভয় দলের নেতাকর্মীদের মাঝে মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটে। স্থানীয় সময় বিকেল সাড়ে চার টার দিকে জা্তিসংঘ সদর দপ্তরের সামনে এ ঘটনা ঘটে। জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিকে কেন্দ্র করে পূর্বনির্ধারিত কর্মসূচি অনুযায়ী দুপুর থেকেই জা্তিসংঘ সদর দপ্তরের সামনে জড়ো হতে শুরু করেন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতাকর্মীরা। পুলিশের ব্যারিকেডের একপাশে বিএনপি এবং অপর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা অবস্থান নেয়। যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ সমাবেশে শেখ হাসিনা ও বর্তমান সরকার বিরোধী বিভিন্ন শ্লোগান দিতে শুরু করেন। অপর দিকে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা পূর্বঘোষিত কর্মসূচি মোতাবেক বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ প্রতিহতের ডাক দেন। শান্তিপূর্ণ সমাবেশের শেষ পর্যায়ে বিএনপির আপত্তিকর শ্লোগানে উত্তেজিত হয়ে পড়েন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। এক পর্যায়ে মুখোমুখি হয়ে পড়েন উভয় দল। ডিম, পানির বোতল ও জুতা দিয়ে ঢিল ও পাল্টা ঢিল নিক্ষেপ শুরু হয়। পরে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। তবে এ খবর লেখা পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তারের খবর পাওয়া যায়নি। একই সময়ে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে স্বাগত জানিয়ে পাশাপাশি অবস্থান নিলে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ সফরসঙ্গী মন্ত্রী ও সরকারি কর্মকর্তারা এ সময় সম্মেলন কেন্দ্রে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে জাতিসংঘের ভেতর অবস্থান করছিলেন। বেশ কিছু প্রবাসীকে পর্যবেক্ষক হিসেবে সম্মেলন কেন্দ্রে অবস্থান নিতে দেখা যায়। জাতিসংঘ সদর দপ্তর সংলগ্ন এলাকায় যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের কয়েক হাজার নেতাকর্মীর সমাগম ঘটে। তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ করে ‘স্বৈরাচার’ ও ‘গণবিরোধী’ বলে স্লোগান দিতে থাকেন। এদিকে, বিএনপির বিক্ষোভের মুখে আওয়ামী লীগের লোকজনের উপস্থিতি ছিল খুবই কম। প্রচুর সংখ্যক বিএনপির নেতাকর্মীরা সমাবেশে উপস্থিত হন। বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে আওয়ামী লীগের আরও কিছু নেতাকর্মী বিক্ষোভরত এলাকায় জড়ো হন। তবে তাদের প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানিয়ে দেওয়া স্লোগান বিএনপির ব্যাপক স্লোগানের মুখে চাপা পড়ে যায়। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অনির্বাচিত ও অবৈধ প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করে বিএনপি নেতারা শেখ হাসিনাকে অবাঞ্চিত ঘোষণা করেন। বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশে এসময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান জিল্লু, সিনিয়র সহ-সভাপতি প্রফেসর দেলোয়ার হোসেন, সাবেক সহ-সভাপতি গিয়াস আহমেদ, সাবেক সহ-সভাপতি শরাফত হোসেন বাবু, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা কামাল পাশা বাবুল, সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আখতার হোসেন বাদল, সাবেক কোষাধ্যক্ষ জসিম উদ্দিন ভুঁইয়া, মোহাম্মদ বসির, বিএনপি নেতা হাবিবুর রহমান সেলিম রেজা, পারভেজ সাজ্জাদ, শফিক রহমান দুলাল, জাকির এইচ চৌধুরী, নিয়াজ আহমেদ জুয়েল, গোলাম মারুফ শাহীন, হেলাল উদ্দিন, এবাদ চৌধুরী, আবু সাঈদ আহমদ, এম এ বাতিন, মাওলানা আতিকুর রহমান, সাঈদুর রহমান সাঈদ, রেজাউল করিম রিজু, তোফায়েল লিটন চৌধুরী, আনোয়ার হোসেন, মার্শাল মুরাদ, জাফর তালুকদার, কাজী আজম, মিল্টন ভুঁইয়া, মাহমুদুর চৌধুরী, ভিপি জসিম, এম এ খালেক আকন্দ, আশরাফ হোসেন, শাহ ফরিদ, মউলানা এম এ কালাম, সায়েদ এ আর ফারুখ, মোঃ আনয়ারুল ইসলাম, সরওয়ার খান বাবু, মতিউর রহমান ( লিটু ), ইঞ্জিনিয়ার মোঃ খালেক, সায়েদ আহমেদ,মোঃ আবু তাহের, ইমরান চাকলাদার, রফিকুল হক, কামাল হোসেন, জীবন শফিক, আলমগীর কবির, মাজহারুল ইসলাম, মো. মোশারফ হোসেন, মো. আলমগীর হোসেন, রুহুল আমিন নাসির, ইঞ্জিনিয়ার মোঃ খালেক, সায়েদ আহমেদ,মোঃ আবু তাহের, ডাঃ নুরুল আমীন পলাশ, রাফেল তালুকদার, রফিকুল ইসলাম ( ডালিম ), নাসিম আহমেদ, মোঃ গিয়াস উদ্দিন, মোঃ রেজাউল, মোকছেদুল এইচ চৌধুরী, মোঃ শাহাদাৎ হোসেন ( রাকু ) , মোঃ জিয়াউল হোক ( মিশা ), জাহিদ খান, খন্দকার রেজোয়ান, আরিফ আহম্মেদ, আরিফুল ইসলাম তুহিন, আলমগীর মৃধা, আমিনুর রহমান, মাসুম বিল্লাহ, মো: মহসিন, রুবেল গাজী, জাফর ফরাজী, মোঃ আঁকন, জাহিদ হায়দার বিশ্বাস, কামাল উদ্দিন দিপু, মাসুক আহমেদ সুজন, সিরাজুল ইসলাম ডালী, মাসুদ হোসেন, শাহাদাৎ হোসেন রাজু, বাসেত রহমান, সাঈদুর রহমান, মো. নান্নু, গিয়াস মজুমদার, মোহাম্মদ সোহরাব হোসেন, মোঃ বদিউল আলম, সায়েদুল হোক, শরিফ লস্কর, মহসিন, শেখ হায়দার আলী, সাইফুল আর খান , নাজেম আহমেদ , ফয়েজ চৌধুরী, সিরাজুল ইসলাম, ফজলে রাব্বি রাজীব, মির মিজান, মোঃ আমানাত হোসেন ( আমান ), আবুল হাসেম শাহাদাৎ, মাইন উদ্দিন, মোঃ নাসিরুদ্দিন, সেলিম আহমেদ, মোহাম্মদ আলী, মোঃ রশিদ, শাহানা খানম, মোহাম্মদ আলী হোসেন, মোঃ শফিকুল আলম, গোলাম হোসেন, শাহ্‌ আলম, আতিকুল হক আহাদ, এমলাক হুসেন ফয়সল, মিজানুর রহমান মিজান, সাইফুর খান হারুন, রেজাউল আহাদ ভুঁইয়া, নাসিম খান, কাজী আমিনুল ইসলাম স্বপন, ডঃ তারেক, আবু সুফিয়ান, সৈয়দা মাহমুদা শিরীন, নিরা রব্বানি, উত্তম বণিক, রাজীব আহমেদ, নাসিম আহমদ, ছাইদুর খান ডিউক, এবিএম সিদ্দিক, আরশাদ খান, মো. হোসেন, ফজলে রাব্বী রাজীব, মো. কাউসার, তৌফিক মিয়া প্রমুখ। আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপার্সনের সাবেক বৈদেশিক উপদেষ্টা ও বিএনপির বিশেষ দূত জাহিদ এফ সরদার সাদী, বিএনপির সাবেক কেন্দ্রিয় নেতা কামাল সাঈদ মোহন, বিএনপির কেন্দ্রিয় আন্তর্জাতিক বিষয়ক সহ-সম্পাদক বেবী নাজনীনসহ অসংখ্য বিএনপি নেতাকর্মী এবং প্রবাসী বাংলাদেশী। বিক্ষোভ সমাবেশে বিএনপি নেতারা বলেন, অগণতান্ত্রিক ও প্রহসনের নির্বাচনে নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রীর দাবিদার শেখ হাসিনার ভাষণ দেওয়ার কোনই অধিকার নেই। কারণ তিনি জনগণের ভোটে নির্বাচিত হননি। যুক্তরাষ্ট্রের যেখানেই হাসিনা সেখানেই প্রতিরোধ আন্দোলন সর্বাত্মক ভাবেই সফল হয়েছে বলে জানান বিএনপি নেতারা।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার এবং লাইক করুন..
visitor counter

এ জাতীয় আরো খবর পড়ুন

All rights reserved © 2019 দেশের গর্জন | Desher Garjan
Design & Developed BY Subrata Sutradhar
Translate »