শনিবার, ১৭ অগাস্ট ২০১৯, ১১:৪৩ অপরাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম:
হাটহাজারী ফটিকা শাহজালাল পাড়ায় এলাকাবাসীর উদ্যোগে ইভটিজিং ও মাদক বিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত নওগাঁর সাপাহারে পুকুরের পানিতে পড়ে শিশুর মৃত্যু আশুলিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত প্রাণ গেলেও আর চট্টগ্রামের একটি চামড়া্ ও ঢাকায় যাবেনা বাকিতে সাঁথিয়ায় গণপিটুনিতে ২ ডাকাত নিহত, অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার বাস-প্রাইভেটকারের সংঘর্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীসহ নিহত ৪ ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে প্রতিবেশীকে কোরবানীর গরু জবেহ করতে না দেওয়ার অভিযোগ ডিমলায় ফ্রি ব্লাড গ্রুপ নির্নয় কর্মসূচি ঝালকাঠি নলছিটিতে তরুনীকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ, অভিযোগে সহযোগী আটক কেশবপুরে পল্লী বিদ্যুতের হাই ভেল্টেজ লাইন অরক্ষিত দূর্ঘটনার আশংকা সাপাহারে বজ্রপাতে কৃষক নিহত ঝিনাইদহে অপহরণের ২ দিন পর অপহৃত উদ্ধার কেশবপুরে ১৪টি জলাশয়ে ৪০০ কেজি মাছের পোনা অবমুক্তকরণ ভোলার মনপুরা উপজেলায় মেঘনায় নিষিদ্ধ কোটি টাকার কারেন্ট জাল জব্দ ভোলার মনপুরা উপজেলায় ৩৬০ মিটার বেড়ীবাঁধে ভাঙ্গন, ভেঙ্গে পড়েছে পাকা সড়ক যারাই বিশ্বাসঘাতকতা করেছে তাদের কারোরই স্বাভাবিক মৃত্যু হয়নি: আলহাজ্ব নুরুন্নবী চৌধুরীএমপি শাওন ১৫ আগস্ট এর শিক্ষা, আমিরুল মোমেনীন মানিক স্ত্রীকে ঘুমের ঔষুধ খাইয়ে হত্যার পর ১৫ টুকরো করল স্বামী জামালপুরে বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দারের বাড়িতে হামলা,আওয়ামী লীগ নেতা আটক সাঁথিয়ায় বৃদ্ধকে পিটিয়ে তিনটা দাত ভাংগিয়া দিলো প্রতিপক্ষরা
রং নাম্বারে প্রেম-প্রেমের দাওয়াতে পার্লারের আড়ালে দেহ

রং নাম্বারে প্রেম-প্রেমের দাওয়াতে পার্লারের আড়ালে দেহ ব্যবসার অভিযোগ

ফাইল ছবি

মাহফুজুল ইসলাম, বিশেষ প্রতিনিধি: কুমিল্লার আউশকান্দিতে পার্লারের আড়ালে চলছে রমরমা দেহ ব্যবসা। দীর্ঘদিন ধরে পার্লার মালিক সু-কৌশলে সবার চোখে মুখে আঙ্গুল দিয়ে চালিয়ে যাচ্ছে তার নানান অপকর্ম। বিভিন্ন থানা ও জেলার পতিতা সুন্দরী যুবতীদের সাথে রয়েছে তার সর্ম্পক। তারা একজোট হয়ে পার্লার মালিক সেজে ধনাঢ্য বিভিন্ন পুরুষদের সাথে মোবাইল ফোন ও ইন্টারনেটের মাধ্যমে সর্ম্পক গড়ে তুলে হাতিয়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা। বিশেষ সূত্রে জানাযায়, আউশকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের কালেক্টর (তথ্য সংগ্রহকারী) মিনাজপুর গ্রামের ইমাদের মাধ্যমে জালালপুর গ্রামের সুমা বেগমকে গত ৩ বছর পূর্বে উপজেলার আউশকান্দি হীরাগঞ্জ মধ্য বাজারস্থ মারফত উল্লাহ ভবনের নিচতলায় রূপসী বিউটি পাল্লার খুলে দেয়। এবং ঐ মার্কেটের মধ্যেই থাকার জন্য আরেকটি রোম নেয়। কয়েকদিন যেতে না যেতেই ইমাদ সহ ঐ পাল্লারে অপরিচিত যুবকদের আনাগোনা শুরু হয়। এবং তা আশাপাশ ব্যবসায়ীদের নজরে পড়ে। এতে ব্যবসায়ীদের মধ্যে কানাগোসা শুরু হয়। আশপাশ সবার নজরবন্দি হয়ে পড়ে ঐ পার্লারের সুমা। কয়েকবার ধারশায়ীও হয়। এতে তাদের দেহ ব্যবসায় নানা অসুবিধা দেখা দিলে ইমাদ সু-কৌশলে ঐ বিল্ডিংয়ের পাশ্ববর্তী লায়েক চৌধুরীর একটি নতুন বিল্ডিংয়ের ২য় তলার একটি প্লাট ভাড়া নিয়ে। সেখানে কয়েক মাস থেকে নির্বিগ্নে চালিয়ে যায় তাদের অপকর্ম। রাস্তার পাশে তার বাসা ও পার্লার থাকার সুবাদে চারপাশের লোকজন প্রায় সময়ই সন্ধা, রাত, ও গভীর রাতে রহস্যময় ভাবে অপরিচিত আরো ২/৪টি সুন্দরী যুবতীর নিয়ে আসা যাওয়া করতো বলে অভিযোগ করেন স্থানীরা। এবং কয়েক জন প্রবাসী সহ এলাকার অনেক নারী লিপসুদের সাথে তার গভীর সর্ম্পক গড়ে ওঠে। এতে সুচতুর ইমাদ বাধা দিলেও কাজ না হওয়াতে ইমাদ পিছু হাটে। কিন্তু সুমার বিরূদ্ধে কেউ প্রতিবাদ করার সাহস করতে না পেরে ঐ বিল্ডিংয়ের মালিককে বিষয়টি অবগত করলে তিনি সাথে সাথে সুমাকে তার বিল্ডিং থেকে বের করে দেন। পরে সে হাজী ওয়াহাব ম্যানশনের নিচতলায় রুপসী লেডিস্ বিউটি পার্লার এন্ড কসমেটিক্স সামগ্রীর দোকান খুলে। আবারও সেখানে শুরু করে নতুন কৌশলে যৌন ব্যবসা। সুমা থাকার জন্য বাসা ভাড়া নেয় মারফত উল্লাহ ভবনে। এবং দূর দূরান্তের পুরুষদের সাথে যৌনচারীতা করার জন্য কাইয়ুম টেইলারের বাসায় বিভিন্ন সময় বিভিন্ন বোরকা পড়ে সন্ধা, রাতে স্থান নেয় এবং ভোরে তার বাসায় চলে আসে। এতে করে সেখানেরও লোকজনের নজরে পড়ে সুমা। এসব সবই ছিল ধরাছোয়ার বাহিরে। দেখা ছাড়া কিছু করার উপায় ছিলনা। কিন্তু কথায় আছে না পাপ বাপকেও ছাড়ে না। সিলেটের জাউয়ার এক প্রেমিককে আউয়া বানিয়ে ধরা পড়লো প্রেমিকা সহ রুপসী বিউটি পার্লারের মালিক সুমার নানা কু-কর্ম। প্রাণে রক্ষা পেয়ে জাউয়ার প্রেমিক জসিম কান্না জড়িত কন্ঠে সাংবাদিকদের কাছে এসে বলে, আমাকে পুরুষ নির্যাতন করা হয়েছে। আমার সাথে গত ৩/৪ মাস পূর্ব থেকে রং নাম্বারে রুপসী বিউটি পার্লারের মালিক পরিচয় দিয়ে প্রেমের সর্ম্পক গড়ে তুলে রোজিনা ও সুমা। ভিডিও কলে আলাপের মাধ্যমে নানান অঙ্গভঙ্গী করে আমাকে আশিকে দেওয়ানা করে তুলে। এতে আমিও সরল বিশ্বাসে রুপসী বিউটি পার্লারে আসি। আমাদের দেখা স্বাক্ষাত হয়। এবং পরে ফোনে আমাকে বলে সে অসুস্থ, ডাক্তার দেখাতে হবে, টাকা লাগবে। কয়েকদিন পর বলে তার মা ও বোন অসুস্থ টাকা লাগবে এতে আমি ২/৫/১০ হাজার করে প্রায় ৩ মাসে ধরে অর্ধ লাখ টাকা দি বিকাশের মাধ্যমে ও সরাসরি এসে। অবশেষে গত ঈদুল ফিতরের পর দেখা করতে আসি আউশকান্দি রুপসী বিউটি পার্লারে। সেখান থেকে রোজিনা ও তার বোনকে নিয়ে যাই বিশ্ব রোডের পাশে শাকিল হোটেলে। সেখানে গিয়ে রোজিনার বোন রাজনা বলে, সে নাকি এই মুর্হুতে বাড়িতে যেতে হবে। এমনতাবস্থায় আমি তার বোনকে ৪কেজি আম কিনে দিয়ে রিক্সা যোগে পাঠিয়ে দেই। পরে হোটেলে খাওয়া দাওয়ার এক পর্যায়ে রোজিনা আমার মোবাইল ফোন হাতে নিয়ে দেখছিল। এতে সে দেখতে পায় যে, তার উলঙ্গ, অর্ধ লগ্ন অবস্থার ভিডিও কলের ছবি আমার ফোনে। তখনই রোজিনা বলে এগুলো রাখছ কেন? আমি বললাম এমনিতেই। মাঝে মধ্যে দেখি। এ কথা বলার পরই সে বলে, চল এখান থেকে চলে যাই। আমি বললাম কোথায়? সে বলে আমার এক বান্ধবীর বাসায়। পরে একটি রিক্সা যোগে তার বান্ধবীর বাসায় নিয়ে যাওয়ার কথা বলে আমাকে নিয়ে যায় তাদের বাড়ি জালালপুর গ্রামে। সেখানে নিয়ে নানা রকম নির্যাতন করে আমার সাথে থাকা টাকা পয়সা, ভোটার আইডি কার্ড সহ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র জোর পূর্বক তারা নিয়ে নেয়। এক পর্যায়ে মোবাইল ফোনে ছবি রাখার দায়ে রোজিনা, তার ভাই কামাল, বোন রাজনা ও তার বাপ মিলে দা ও লাটি দিয়ে আমাকে বেধরক মারপিট করে গুরুত্বর আহত করে বস্তাবন্দি করে বলে যে, আজ তুকে চাক্কি চাক্কি করে দিঘীর মাগুর মাছকে খাওয়াব। এসব মারপিট ও কথাবার্তা শুনে জীবন রক্ষার্থে জুরসুরে চিৎকার শুরু করলে পাশ্ববর্তীর বাড়ির ২/৩জন লোক এসে আমার প্রাণ রক্ষা করেন। এতে আমি কোন রকম সেখান থেকে বেঁচে আসি আউশকান্দি বাজারে। এ বিষয়টি বাজারের বিভিন্ন ব্যবসায়ীকে অবগত করলে তারা আমাকে পরার্মশ দেন যে, বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতির কাছে বিচার দেওয়ার জন্য। কিন্তু আমি সভাপতিকে না পেয়ে চলে যাই রুপসী বিউটি পার্লারের ওয়াহাব ম্যানশনে। সেখানে অবস্থিত বিভিন্ন ব্যবসায়ীর কাছে বিচার প্রার্থী হই। তারা আমাকে বলেন যে, এখানে বিচার দিয়ে কোন লাভ হবে না উল্টো তুমি আরো মাইর খাবে! এখান থেকে চলে যাও। পরে আমি গাড়ির শ্রমিক ভাইদের কাছে গিয়ে বিচার দিলে তারা সাংবাদিক ভাইদের কাছে যাওয়ার জন্য বলেন। এবং তারাই সাংবাদিক ভাইদের খুজে বের করে দেন। এতে করে আমি আপনাদের কাছে আসি এবং এ পুরুষ নির্যাতনের বিচার চাই। এক প্রশ্নের জবাবে সে বলে এ ঘটনার জন্য আদালত বা থানায় মামলা করবো। এ ব্যাপারে রুপসী বিউটি পার্লারের মালিক সুমাকে মোবাইল ফোনে বিষয় সর্ম্পকে জানতে চাইলে, সে সরাসরি সাংবাদিকদের কাছে এসে বলে যে, রোজিনা তার দোকানের কর্মচারী। সে এক প্রবাসীর স্ত্রী ও ১ সন্তানের জননী। গত ৩/৪ মাস ধরে রোজিনা তার পার্লারে কাজ করেছে, এবং যা হওয়ার হয়েছে এবারের মতো ক্ষমা চেয়ে বলে নিউজ করলে দয়া করে আমার নাম বা দোকানের নাম দিবেন না। আপনারা চাইলে সব পারেন আমাকে ক্ষমা করেন। এদিকে বাজার এলাকায় এ ঘটনা জানাজানি হলে শুরু হয় নানা সমালোচনা ও তীব্র নিন্দার ঝড়। সচেতন মহলের দাবি এ কুকর্মের হুতা সুমাকে এই বাজার থেকে বিতারিত না করলে এলাকার অনেক যুবক যুবতী নষ্টের পথে দাবিত হবে। তাই এসমাজ রক্ষা করতে হলে এদেরকে বিতারিত করতে হবে। এতে স্থানীয় প্রশাসন, সচেতন যুব সমাজ ও থানা পুলিশের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকাবাসী।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার এবং লাইক করুন..
visitor counter
All rights reserved © 2019 দেশের গর্জন | Desher Garjan
Design & Developed BY sdsubrata.info
Translate »