শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:৩১ অপরাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম:
ঝালকাঠিতে দেশটাকে পরিষ্কার করি দিবস শপথ পাঠ মানিকগঞ্জে নদীর পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু জি কে শামীমকে গুলশান থানায় হস্তান্তর মা হলেন কারাগারে নুসরাতের বান্ধবী মনি খোঁজ মিলছে না জয়পুরহাটের ফজলুল হক চৌধুরীর হাতিরঝিলের লেক থেকে ভেসে উঠা অজ্ঞাত ব্যক্তির মরাদেহ উদ্ধার বোয়ালখালীতে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ কিশোর আটক! সোনাগাজীতে বিদ্যুৎ প্রকল্পের জন্য ভূমি অধিগ্রহন বসতভিটা রক্ষায় বিক্ষোভ সমাবেশ বোয়ালখালীতে পবিত্র যিকরুল কুরআন মাহফিল অনুষ্ঠিত নবীগঞ্জে পুলিশের উপর হামলাকারী আলোচিত সন্ত্রাসী মুসার সহযোগী কাশেম গ্রেফতার নরসিংদীতে ব্যাংক কলোনী সমাজ উন্নয়ন সংস্থার সদস্যের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেন অন্যান্য সদস্যরা বহিষ্কার করা হয়েছে ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে সরকারি সহযোগিতার অপেক্ষায় বুদ্ধি প্রতিবন্ধী কাশেম ও তার পরিবার ! সাটুরিয়ার রাধা নগর গ্রামের বকাটে সুমনের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে থানায় মামলা দায়ের ঝালকাঠিতে ৩৪ বছরেও মেলেনি প্রতিবন্ধী রহিমার প্রতিবন্ধী ভাতা নবীগঞ্জে একই পরিবারে ৩ জনের ইসলাম ধর্ম গ্রহণ হরিপুর সীমান্তে মৃতলাশ উদ্ধার নরসিংদীতে মিথ্যা তথ্য দিয়ে সংবাদ প্রকাশ করায় তিন সংবাদ কর্মীর বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্ত আইনে মামলা দায়ের কঠোর নজরদারিতে রাজধানীর ক্যাসিনো বা জুয়ার আড্ডা ঝালকাঠিতে ৬ষ্ঠ শ্রেণির স্কুল ছাত্রী সন্তানের মা হলেও বাবার পরিচয় নিয়ে সংশয়
সাঁথিয়ার ঐতিহাসিক ৩০০ বছর আগের জমিদার বাড়ি

সাঁথিয়ার ঐতিহাসিক ৩০০ বছর আগের জমিদার বাড়ি ধ্বংসের দ্বার প্রান্তে

ফাইল ছবি

আরিফ খাঁন ,স্টাফ রিপোর্টারঃ পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার ঐতিহাসিক ক্ষেতুপাড়া জমিদার বাড়িটি দীর্ঘদিন সংস্কার না করায় ভেঙে লতাপাতায় ছেয়ে গেছে। বর্তমানে বাড়িটি ধ্বংসের দ্বার প্রান্তে এসে দাঁড়িয়েছে। বর্তমানে বাড়ির সাথে বাজার হওয়ায় বাড়িটির প্রধান প্রবেশদার ভেঙ্গে তোলা হয়েছে দোকান ঘর। অথচ ১০ বিঘা জমির ওপর তৈরি এ বাড়িটি সংস্কার করলে এখানে গড়ে উঠতে পারে পর্যটন কেন্দ্র। জনশ্রুতি রয়েছে আজ থেকে প্রায় ৩০০ বছর আগে ভারত থেকে নব কুমার নামে এক জমিদার এসে সাঁথিয়া উপজেলার ক্ষেতুপাড়া ইউনিয়নের গোলাবাড়ি গ্রামে অবস্থান নেন। সেখানে তিনি একটি বাড়ি নির্মাণ করে ১৫৪টি তৌজি নিয়ে তার জমিদারি পরিচালনা করতে থাকেন। জমিদার নব কুমার রায় মারা যাওয়ার পর তার একমাত্র ছেলে পার্বতী চরণ রায় ৬০ বছর এখানে জমিদারি করেন। জমিদার নব কুমার সম্বন্ধে তেমন কিছু জানা না গেলেও তার ছেলে পার্বতী চরণ রায় সম্বন্ধে জানা যায়, তিনি ভারতের কাশীতে বিয়ে করেন। বিবাহিত জীবনে চার পুত্রসন্তানের জনক ছিলেন তিনি। পুত্ররা হলেন হেমন্ত রায়, রামাচরণ রায়, শ্যামা চরণ রায় এবং বামা চরণ রায়। বাবা পার্বতী চরণ রায় মারা যাওয়ার পর তিন পুত্র ভারতে চলে গেলেও এক পুত্র শ্যামা চরণ রায় সাঁথিয়ায় থেকে যান। শ্যামা চরণ রায় মারা যাওয়ার পর তার একমাত্র ছেলে দীপক কুমার রায় সংসারের দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। এক পর্যায়ে দীপক কুমার রায় জমিদার বাড়িটি বিক্রয় করার ঘোষণা দিলে সিরাজগঞ্জ জেলার শাহজাদপুরের সন্ধ্যা রানী বাড়িটি ক্রয় করেন। বর্তমানে বাড়িটিতে সন্ধ্যারানী ও তার স্বামী জ্ঞানেন্দ্র নাথ তালুকদারের মারা যাওয়াার পর তাদের চার ছেলে উত্তম তালুকদার, গৌতম তালুকদার, অরুণ তালুকদার এবং অলক তালুকদার বসবাস করছেন। জানা যায়, সন্ধ্যারানী বাড়িটি ক্রয় করার পর ১৯৩৮ সালে একবার বাড়িটি সংস্কার করা হয়েছিল। বর্তমানে বাড়ির বাসিন্দারা অর্থাভাবে সংস্কার করতে পারছেন না। বাড়িটি সংস্কার করা না হলে অচিরেই হারিয়ে যাবে ঐতিহাসিক এই জমিদার বাড়ির শেষ চিহ্নটুকু এবং হারিয়ে যাবে সম্ভাবনাময় এই পর্যটন কেন্দ্রটি। উল্লেখ্য, এ জমিদার বংশের অন্যতম প্রাণপুরুষ শ্যামা চরণ রায় একজন বিদ্যানুরাগী ও সমাজসেবক ছিলেন। তিনি বর্তমান সাঁথিয়া উপজেলা সদরের সাঁথিয়া পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়, সাঁথিয়া কামিল মাদ্রাসাসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে জায়গা দানসহ অনেক সেবামূলক কাজ করে গেছেন। এব্যাপারে জমিদার বাড়িতে বর্তমানে বসবাসরত অরুন তালুকদার বলেন, এটা আমাদের ব্যক্তিগত সম্পত্তি বাড়িটি সংরক্ষণের জন্য আমাদের সরকার থেকে মন্দিরের জন্য একটি সোলার ছাড়া কোনো অনুদান দেওয়া হয়নি। আমাদের বেঁচে থাকার তাগিদে সব ভেঙ্গে ফেলে দোকান ঘর তুলে ভাড়া দিচ্ছি। অনুদান চেয়ে বহুবার অনেকের কাছে লিখিত দরখাস্ত দিয়েও কোন লাভ হয়নি।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার এবং লাইক করুন..

এ জাতীয় আরো খবর পড়ুন

All rights reserved © 2019 দেশের গর্জন | Desher Garjan
Design & Developed BY sdsubrata.info
Translate »