রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৩:০৬ অপরাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ শিরোনাম:
সাবেক প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজমের প্রচেষ্টায় উন্নয়ন হচ্ছে জামালপুর ইউপি সদস্য ও তার সহচর কর্তৃক ধর্ষিত হয়ে বিধবার আত্মহত্যা! দূর্নীতি বিরোধী শুদ্ধি অভিযানকে স্বাগত জানিয়ে নীলফামারিতে র‌্যালী ও সমাবেশ জামালপুরের মেলান্দহে ধান বোঝাই ট্রাক্টর উল্টে চালকের মৃত্যু রাশিদুলের দুটি কিডনিই বিকল,মানবিক সাহায্যের আবেদন ঝালকাঠিতে ইলিশ নিধন অপরাধে তিন জেলেকে কারাদন্ড  ঝালকাঠিতে ইলিশ মাছ  নিয়ে পালানোর নালায় পড়ে প্রবাসীর মৃত্যু দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযানকে স্বাগত জানিয়ে নীলফামারীতে র‌্যালী ও সমাবেশ ধামরাই প্রেসক্লাবের দ্বিবার্ষিক নির্বাচন সাঁথিয়া সরকারি হাই স্কুলে প্রশ্নপত্র না থাকায় নির্বাচনী পরীক্ষা দিতে পারেনি ১৮৯জন শিক্ষার্থী বেড়ায় ভ্রাম্যমানে জেল জরিমানা ইলিশসহ কারেন্ট জাল জব্দ সাটুরিয়ায় ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপে সিএনজির চাঁদা তুলা বন্ধ আওয়ামীলীগের স্লোগান জয় বাংলা নয়, এটি মুক্তিযুদ্ধের রণধ্বনি: আকম মোজাম্মেল হক জামালপুরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর কণিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের ৫৫তম জন্মদিন পালিত আবরার হত্যা ও সমসাময়িক রাজনীতি নিয়ে বাংলাদেশ কংগ্রেসের উন্মুক্ত আলোচনা অনুষ্ঠিত প্রজাতন্ত্রের কর্মকর্তারা সবাই জনগণের চাকর: তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান এমপি রূপগঞ্জ ইউপি’র নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান সালাহউদ্দিন ভুঁইয়াকে ফুলেল শুভেচ্ছা সাটুরিয়ার জান্নায় পল্লী বিদ্যুতের উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত জাবিতে দোয়া মাহফিল ও শিক্ষা উপকরণ বিতরণের মাধ্যমে শেখ রাসেলের জন্মদিন পালন ধামরাইয়ে অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার
হাসপাতালের বিল পরিশোধ করার পর জানতে পারলেন

হাসপাতালের বিল পরিশোধ করার পর জানতে পারলেন স্ত্রী মারা গেছে

ফাইল ছবি

নিজস্ব প্রতিনিধি: ডাক্তারের ভুল চিকিৎসা ও ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের অবহেলায় নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাড়ায় কেয়ার জেনারেল হাসপাতালে মিলি বেগম (২৯) নামক এক গৃহবধূর মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। এসময় রোগীর স্বজনরা হাসপাতালে ভাঙচুরেরও চালিয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিলে স্বজনরা শান্ত হন।৩০ সেপ্টেম্বর সোমবার বিকেলে এ ঘটনা ঘটে। নিহত মিলি বেগম ফতুল্লা থানাধীন শিবু মার্কেট পশ্চিম লামাপাড়া এলাকার মো. শাহ আলমের স্ত্রী। নিহতের স্বামী শাহ আলম বলেন, মিলির কয়েক সপ্তাহ ধরে প্রচণ্ড মাথাব্যথার জন্য মেডিসিন ও স্নায়ুরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. জাহের আলীকে দেখাই। তার পরামর্শ অনুযায়ী রাত পৌনে ১১টায় কেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করি। ব্যথা না কমায় সোমবার ৩টার দিকে আবারও ডাক্তার ডাকতে গেলে হাসপাতালের লোকজন আবারও ওষুধ আনতে পাঠায়। ওষুধ নিয়ে আসার আগেই আমার স্ত্রীকে হাসপাতালের বাইরে অ্যাম্বুলেন্সে তুলে ফেলে। বলে দ্রুত হাসপাতালের বিল পরিশোধ করেন আপনার স্ত্রীর অবস্থা খারাপ ঢাকায় নিয়ে যেতে হবে। বিল পরিশোধ করার পর হাসপাতালের এক কর্মকর্তা বলেন আপনার স্ত্রী মারা গেছে। তিনি আরো বলেন, ওই ডাক্তারের ভুল চিকিৎসা ও টাকার জন্য হাসপাতালের লোকজন আমার স্ত্রীকে মেরে ফেলেছে। হাসপাতাল থেকে সকালে ঢাকায় নিলে আমার স্ত্রী মরতো না। ওরা টাকার জন্য আমার স্ত্রীকে মেরে ফেলেছে। আমি এর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার এবং লাইক করুন..
visitor counter

এ জাতীয় আরো খবর পড়ুন

All rights reserved © 2019 দেশের গর্জন | Desher Garjan
Design & Developed BY Subrata Sutradhar
Translate »